“Kunjnagar, ” a Poetical Endeavour

at Kunjanagar beside the potholed street stood I at blazing sunset lone. The orange

cloudlets scattered the western horizon. Slowly evening descended, and tiny dew

droplets began falling. The birds went home and stopped their songs and fell soon

asleep. But a wayward parrot flicked in the air still. Later a full moon bathed the

harvested field, and crickets sang incessant, and eyes feasted on fireflies’ dance round

the bogs. Frogs croaked, and the clusters of stars hung heavy over me. The silence

broken by the occasional barking of the dogs and motorcycles’ whiz. The air was heavy

with scent of the woods and herbs. Looking at the patterns of the stars and the fireflies I

glimpse a heaven.

a young boy collects for cooking,  twigs, and dried leaves from a shredded tea bagan

 long planted. The garden once boasted of its charm and magic, with lush green foliage,

and the beautiful rain trees spotted the long stretches of the horizon.  Now it lost its

charisma; poverty, and illiteracy, and lack of a square meal run its nourishers. The

‘coolies’, once they were so, and they all came from ‘Goomla’, Chhotanagpur, now

Jharkhand. A paltry payment after in weekend, and all they gather to haats, for haria,

and the vegetables, and groceries. Hardworking lot, from sun to moon they labour, now

not in tea gardens, but in some in the houses of Falakata babus.

 

Visit a haat, and see the charisma of GOD!

labouerers, unfed, half-fed, barefoot, children’s noses running, And the Adivasi women

selling ‘haria’ for a bare living, or somewhere, they even sell their emaciated bodies,

breasts lost the sense

of erection, all dull flesh, and the nipples dried, black.

Body twisted, and scarred, through the years shine, and shower, and male turpitudes,

I see on haats, or in pavements dry, or in bus stops, children sucking pale, pale mothers,

and they try  hard to cover  breasts with one end of their sullied torn sarees,

Sometimes, mothers don’t care at all men’s lustful gazes.  I see it at Gayerkata haat too.

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

Advertisements

Layered Marginality of Bengali Muslims in West Bengal: An Introspective Study

Na kisee kee aankh ka noor hoon

Na kisee key dil ka quaraar hoon

Jo kisee key kaam na aa sakey

Main v eek musht-e-ghubaar hoon

———— Bahadur Shah Zafar (1775-1862)

3437831075_1af364e217.jpg

picture courtesy ‘Two Circles’

IMG-20180208-WA0002.jpg

Introduction

Of every four persons in West Bengal, roughly speak

ing one is a Bengali Muslim. Despite their numerical density and participation in different socio-economic activities their identity is basically singular, based only on their religious affiliation. They are solely “Muslims”. All other identities (Bengali, professional, educational, economic, residential etc.) are never acknowledged and often suppressed by popular lazy media, and concocted, unscrupulous power-hungry religious and political leaders and even by the Muslims themselves, leading to their marginality and voicelessness in the societal-cultural milieu and years of dehumanization and denigration in their own land and

outer world as well. Since the Independence Bengali Muslims have invariably been treated like “football”, only to be kicked off by the parties of all colours to gain political mileage. They are the “son of the soil”, and not imported stock like that of the Central Asian Aryans of whose ancestry the Brahmins are very proud. But unfortunately the bhodrolok Brahmins are at the helm of all state affairs, and the shudra-converted Bengali muslims are terribly sidelined,and made voiceless. Only at the time of elections some promises of “madrashas”, “Imam Bhatas” and “Urdu Academies”, and “Haj Houses” are doled out to them leading to the marginalization of the Bengali Muslims further. This cruel play is being played and replayed ad infinitum.

Origin

In reference to the the Max Muller’s contribution to origin and development of the ancient culture of India learned historian Romila Thapar has argued:

For Max Muller the Rgveda was the earliest stratum of Indo-European and therefore the most ancient literature in the world and key to the earliest language and religion of India. He maintained that there was an original Aryan homeland in central Asia from where there was a dispersal of Aryan speakers branching in two directions. One went to Europe and the other migrated to Iran eventually splitting again with one segment invading north-western India. The references in the Rgveda to the aryas and to their hostility towards the dasas, were read as the Aryans invading and enslaving the indigenes—the dasas, and eventually settling in India. (9)

And in reference to Jyotiba Phule she also remarked:

Writing in the latter half of the nineteenth century in Marathi, Phule argued that the original inhabitants of India were the adivasis, among whom he included the sudras, atisudras, and Dalits, all of whom were descendents of the heroic peoples ed by the daitya king Bali. The adivasis fought the arrival of the brahmanas who represented the Aryans, but were conquered and subordinated.(14)[1]

যাইহোক ম্যাক্সমুলার সাহেবের কথায় আর্যরা মধ্য-এশিয়া থেকে এসে উত্তর-পশ্চিম ভারত আক্রমন করেন। সেখানকার মূলনিবাসীদের, যাদেরকে আর্যরা ‘দাস’ মনে করত,পরাজিত করেন। তারপর তারা ধীরে ধীরে মধ্য ও পূর্ব ভারত দখল করে্ন। আজকে যারা ব্রাহ্মণ বলে গর্ব করেন, তাঁরা আসলে ভারতের বাইরে থেকে আসা যাযাবর আর্যদের উত্তরসূরি।সুতরাং ভারতবর্ষ আর্যদের ‘পিত্রভূমি’ বা ‘পুণ্যভূমি’ নয়। দাস বা শূদ্র্ররাই ভারতের প্রাচীন বাসিন্দা। আর্য আক্রমণের পূর্বে শূদ্র্রদের নিজস্ব জমি-জায়গা, চাষবাস, সংস্কৃতি সবই ছিল। তাঁরা আর্যদের হাতে পরাজিত হয়ে তথাকথিত ‘নিকৃষ্ট’ জীবের আসম্মানকর খ্যাতি লাভ করেন। এবং আর্যদের দ্বারা উদ্ভাবিত ‘বর্ণব্যবস্হা’-র কবলে পড়তে বাধ্য হন। ম্যাক্সমুলার সাহেবের কথা এজন্য টানলাম কারন তিনি ‘Scholar Extraordinary’। আর এই ‘Scholar Extraordinary’-এর লেখক নীরদ চৌধুরী কি অন্য ইতিহাস বলবেন? তাঁর মতে,

বিজয়ী ও ঔপনিবেশিক আর্যেরা বাংলাদেশে ইহাদেরই [আদিবাসীদের] উপর আধিপত্য করিত। তাহাদের উচ্চতর জীবন এই অনার্য জনসমষ্টির শ্রমের উপর প্রতিষ্ঠিত ছিল।এই সামাজিক ও বৈষয়িক ধারা বিংশ শতাব্দীর প্রথম ভাগ পর্যন্ত পরিবর্তিত হয় নাই। বাংলার জনসমষ্টিকে এই জন্য দুই স্তরে বিভক্ত করা যাইত—এক, ঔপনিবেশ স্থাপনকারী ভদ্রসম্প্রদায়; আর এক পুরাতন অধিবাসীর দাস সম্প্রদায়।[2]

এই ইতিহাস আমাদের আজ সকলের জানা। সুতরাং আর্যেরা প্রথমে মেরে কেটে ভারতের আদী অধীবাসীদেরকে পরাজিত করে। এবং পরে ভারতকে ধীরে ধীরে ‘পুণ্যভূমি’-তে রূপান্তরিত করে। পরে আবার সেটা ‘পিতৃভূমি’ কি করে হল, এই ইতিহাস M. S. Golwalkar –এর জানা থাকলেও, আমার জানা নেই। ভারতের বাইরে থেকে শক, হুন, মুঘল, পর্তুগীজ, ইংরেজ ইত্যাদির ন্যায় আর্যেরাও তো ক্ষমতা দখল করেছে পেশীর বলে। শুধু এইটুকু বুঝতে পারিনা যেখানে অন্যরা যখন সব পরম ও চরম শত্রু বলে পরিচিত, সেখানে আর একটি বিশেষ যাযাবর শ্রেনী ভারতের বাইরে থেকে এসে পুণ্যভূমি, পিতৃভূমির গল্প শোনায় কি করে? আর তার থেকেও অবাক হয় যখন দেখি এই গল্পটি কিছু লোকের কাছে মাত্রাতিরক্ত সমাদ্রিত, এবং এদের অহঙ্কার ও ক্ষমতা প্রশ্নাতীত। এতো বিজেতাদের ইতিহাস। পরাজিতরা গেল কোথাই? কার্ল মার্ক্সের ভাষায়, যেটি নীরদবাবু আগেই স্বীকার করেছেন, আর্যেরা তো ‘superstructure’ আর দাসেরা ‘structure,’ যদি আমি ভুল না বুঝে থাকি। কারন আর্যদের ‘উচ্চতর জীবন এই অনার্য জনসমষ্টির শ্রমের উপর প্রতিষ্ঠিত ছিল।’ যাদের শ্রম সমাজের মূল চালিকা শক্তি, আজ তাদের পৃথক ইতিহাস কোথাই? আছে, এদিক ওদিক ছড়িয়ে ছিটিয়ে। দরকার সেগুলিকে একসাথে সঙ্কলিত করে গতানুগতিক একঘেয়ে ইতিহাসকে চ্যালেঞ্জ করা এবং সত্য ইতিহাসের অনুসন্ধান করা।

Clarification of the term “Bengali Muslim”

First of all, I ask a simple question: who are ‘Bengali Muslims’? Does it mean all the Muslims living in West Bengal? It is not so. It refers only to all the Bengali speaking Muslims in West Bengal. Are they foreigner, or descendents of Emperor Babur, etc. as often alleged? Is there any deeper relation, barring religious tokenism, among Bengali speaking Muslims and Urdu, Tamil, Nepali, Syrian , Arabian, Pakistani, Afghanistani, Palestian, Indonesian, Egyptian Muslims, etc. There is absolutely nothing in common among these variants. It is interesting to note that variants among the Muslims even in India are inter-state, intra-state, inter-district, intra-district, and so on and forth, depending on the economic and social structure of the region. Neither the Indian Muslims nor the Bengali Muslims are a homogenous lot. They are Bengali at the core as that of the Bengali babus. They are the son of the soil, born here and will die here. They are shudra converted (because of Brahmanic tyranny) as many texts and history itself is a witness to this often willingly forgotten fact[3]. The Bengali Sheikhs have nothing in common with Arabian Sheikhs’s wealth, status and luxury. Many Bengali Sheikhs do the job of a scavenger to Arabian Sheikhs for a few rials. They are ill clad, ill fed, illiterate, poor, landless, ignorant, simple, mud housed rural backwood mass with hearts made of pure gold. And none of them can speak, Arabic, or Urdu, generally thought to be the sacred Islamic cultural medium. They speak in households Bengali dialects, not the standard Kolkata, or ‘Santipuri’ Bengali. They are culturally, socially, financially excluded from the so called mainstream ‘bhadralok’ Hindu babus.’ They are ‘pichieye para’ underprivileged ‘base’ stock of rural folk. They are the cheap labour of West Bengal. Thus the identity crisis of Bengali Muslims emerges mainly from two fronts—one from the caste Hindus who are in the habit of treating them as solely Muslims, and form the Urdu speaking Muslims the Bengali Muslims are treated as impure and base Muslims culturally alienated from the pure Islam. From this unfortunate discourse emanates the linguistic and cultural marginality in the broader domain of their public life. “…some members of the urban ‘mainstream’ Bengali elites construct an idea about the Muslims which takes their religious affinity as their singular identity, completely missing all other identities the strongest among which is their being “Bangali”’[4]. Another important finding is that more than 90 percent of the rural Muslims [in West Bengal] are Bangla-speaking, and only a tiny section reported Urdu to be their mother tongue. This sharply contrasts with a notion prevalent even among the literati of the urban areas that Muslims are mostly Urdu speaking.[5]

Stereotypical Clichés.

  1. Bengali Muslims cannot speak Urdu. They speak only local Bengali dialects and the prounnunciation of which makes the Bengali elites often utter “gaiya”.
  1. Bengali Muslims are not giving births like street dogs, as often alleged in public life. “Unlike the socially constructed belief that there is ‘Muslim population explosion,’ the recent Census data [2011] show a decreasing trend in growth among the Muslim population across the state.[6]
  1. The students of Bengali Muslim households are not madrasha-centric. Their enrolment in public school and colleges are increasing day by day. Govornment’s apathy to the educational infrastructural development in highly Muslim concentrated districts, blocks is as clear as daylight. “That the rate of enrolment in schools was very high in the areas with Muslim preponderence clearly showed that not only they were not averse to moden education but also that there was a clear lack of educational infrastructure in those areas”.[7] The differnce between blocks with a 15 per cent or less concentration of Muslims, and those with a 50 per cent or more concentration stands at 4.0 for both all management and government combined Secondary and Higher Secondary Schools. Such a wide gap does not only deter large numbers of Muslim youth from seeking higher levels of education, but also deters those taht live in these areas side by side. (SNAP Report, p. 38)[Muslim]students who are intellectualy capable of higher education but cannot afford to travel to the cities or to the districts with better universities are thus systematically excluded. (SNAP Report, p. 47)
  1. “Khariji” madrashas with a tin or thatch roof, few broken chairs, tables and benches, no toilets and supply of water, a few half-naked, emaciated Muslim students who call their master not as sir but “chhaarr” in West Bengal can never be the sponsors of terrorism, as alleged by self-defeating Hindu bhadrlok. If one is human, I am quite sure, that seeing such sorry and pathetic conditions of remote Khariji madrashas in west Bengal tears will roll down from her/his eyes.
  1. Bengali Muslims are not responsible for the destruction of Hindu temples, and they cannot marry a Hindu girl by force judjing from their economic and societal status. আমরা দেখেছি যে বাংলার নবজাগরণ শুরু হয় হিন্দু সমাজকে কেন্দ্র করে যা কিছুদিন পরেই হিন্দু পুনর্জাগরণের রুপ নেয়। তখন প্রাচীন ভারতের ধর্ম, ইতিহাস ও ঐতিহ্যের উপর জোর পড়ল। সাথে সাথে হিন্দু মানসে তার অতীত গৌরব এবং বর্তমানের উন্নতির নিরিখে মধ্যযুগের ইতিহাসকে লজ্জাজনক মনে হল। আর এ জন্য তাঁরা স্বভাবতই দায়ী করলেন মুসলমানদেরকে—যারা আক্রমণকারীরুপে ভারতে প্রবেশ করেছিলেন। তাঁরা [বেমালুম] ভুলে গেলেন, যে সেই আক্রমণকারী মুসলমান আর সমকালীন পরাধীন মুসলমান সব দিক দিয়ে আলাদা।[8]
  2. বাঙালি মুসলমান সবায় গোহত্যা করেনা। বরং এরা ‘গোধনে’ বিশ্বাস করে। গরু লালন পালন করেই গ্রামের অনেক গরিব মুসলমান চাষি জীবিকা নির্বাহ করে। এ প্রসঙ্গে মীর মশাররফ হোসেনের “গো-জীবন” (১৮৮৯) একটি অমুল্য দলিল। এখানে আজকের গো-রক্ষক সভা ও সমিতির নেতা নেত্রীদের আমি অনুরোধ করব Vandana Shiva-আর ‘Sacred Cow: A Miliking Machine’[9] লেখাটি পড়তে, যেখানে তিনি লিখেছেন, ‘breeding genetic diversity of livestock with multiple uses has been ignored by the industrial animal ‘factories’, which have reduced cows to milk and meat machines.’ সুতরাং শুধু মুসলমানদের গো-ভক্ষক বলে তুলোধোনা করা মেজরিটি কালচারের ‘tyranny’ ছাড়া বিশেষ কিছু নয়।ইস্যুটি অত সহজ নয়। নিরপেক্ষ ভাবে দেখলে ঝোলা থেকে বিড়াল বেরিয়ে পড়বে।
  3. Bengali Muslims are not responsible for the division of Bengal. “১৯৪৭ সনে মুসলমান বাঙালীর বিরুদ্ধতা সত্ত্বেও হিন্দু বাঙালীর ভোটে বাংলাদেশ বিভক্ত হইল”।[10]
  4. বাঙালি মুসলমান আরব, তুরস্ক, আফগানিস্থান থেকে কেউ ভারতে আসেনি। এরা শূদ্র থেকে ধর্মান্তরিত। বাঙালি মুসলমান ভারতের আদি বাসিন্দা। এরা মূলনিবাসী বা ভূমিপুত্র।

তাই বাঙালি মুসলমানদের নিয়ে আমাদের গর্বিত হওয়া উচিৎ। কিন্তু ঘটে ঠিক বিপরীত। রাস্তা ঘাট, ট্রেন বাস, পাড়ার ক্লাব, হাসপাতাল, থানা, আদালত, আপিস, সব জায়গার একটি সুস্বাদু মুখরোচক বিষয় মুসলমান তুলোধোনা। তুরস্কে, ইরাকে বোমা ফাটলে বা পাকিস্থানে আত্মঘাতী হামলা হলে, দূরদর্শন, খবরের কাগজের পোয়া বারো। একই পচা খবর সারাদিন লাইভ চলবে। পাড়ার এঁদো গলি থেকে শুরু করে শহরের রাজপথ মুসলমান বিদ্বেষী ক্ষীস্তি খেঁউড়ে সরগরম। অথচ বাঙালি মুসলমানের কিছু করার থাকে না। এক সহ্য ছাড়া। বাঙালি মুসলমান দু বেলা খাবার যোগাড় করতে হিমসিম খায়। সে কি করে বিশ্ব মুসলমানের ঠ্যাকা নেবে? তাই আজও বাঙালি মুসলমানকে সহিষ্ণুতার সাথে সামনের দিকে এগুতে হবে, আধুনিক বিঞ্জান ও প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষাকে কেন্দ্র করে। এছাড়া আর কোন বিকল্প রাস্তা নেই। আর এটা হলে, ক্ষীস্তি খেঁউড়ের দল শুঁড় শুঁড় করে সরে পড়বে।

Representation of Muslims in Media

Print as well as elctronic and social media are playing a disparaging role leading to the marginalization of Bengali Muslims further. They are so lazy that they fail to investigate the every day hard reality faced by Bengali Muslims. Their stereotypical representation of Muslims includes such obnoxious and derogatory terms as terrorists, beef-eaters, invaders, oppressors, barbaric, uncivilized, anti-national, illiterate, ignorant, poor, unhygenic, drug-traffickers, burglers, etc. It is a sheer and vulgar misrepresentation of the true identity of Bengali Muslims. Bengali Muslims may be poor and uneducated, but most of the other terms are forcibly applied to them to dehumanize and denegrate their holistic status. The true identity of Bengali Muslims is never reflected in Bengali art, literature, journalistic writing, media, and the educated public discourse of everyday Bengali life. Bengali Muslims earn their livelihood by the sweat of their brow. They are farmers, rickshaw-pullers, tailors, vegetable-sellers, masons, labours, biri-workers, village-vendors, poor, meek mass. Why Bengali Muslims are being misrepresented? The reason behind is the indulgence in the politics of writing/ representing by so called intellectuals, journalists, media anchors for some vested interests. The moot point is that as they are unable to represent themselves, they must be represented and of course with a tinge of malice, hatred and vituperation in order to make them Saidian “Other”.

Bengali Muslims and Politics

অন্য দিকে ভোটপ্রার্থীরা ভাল করিয়াই জানেন যে, শুধু বড়লোকের ভোট যোগাড় করিয়া জেতা যাইবে না, “ছোটলোকেরা” বেশীসংখ্যক, সুতরাং তাহাদের ভোটের মূল্য বেশী। তাই দৈত্যপক্ষের ক্যান্ডিডেট গজোদরবাবু মুসলমানপাড়ায় গিয়া নেমকহারাম গাজী মিঞাকে হাত করবার চেষ্টা করলেন, সঙ্গে তাঁহার দালালরাও আছে। গজোদর বলিলেন,

“আচ্ছা, গাজীসাহেব! তুমি যত টাকা নেও দেবো, আমাদের পক্ষে ভোট দিতে হবেই; নয়ত তোমার এই খানকার দ্বারদেশে পড়ে রইলুম। বুকে পা তুলে মেরে দে না; জয় জগদীশ্বর! যা কর বাবা গাজী সাহেব। আজ তোমার পায়ে মাথা খুঁড়ে মরব।”

গাজী—“আরে শালার ভাই শালারা বড় ভগরে [ফককরে] ভেননেক [ফেললেক]যে! সুমুন্দির ভাই নড়ে না যে! যেন পাষাণ হোই দেখ, আত্তির দুপুরের বেলায় যেন একটা অগড় [রগড়] পেয়েচে। ডাকবো নাকি লোকগর, ছেড়ে দেনা।”

ব্যাপার দেখিয়া গজোদর বাবুর দালাল অকালকুষ্মাণ্ড ক্যানভাস করিবার ভার নিল—

“বাবা গাজী! তোর পায়ে পৈতে ছিঁড়বো।” (“পৈতা জড়াইয়া গাজীর পদতলে পতন”)

গাজী—“আরে শালা বমোন কল্লাক্ কি! হুঁ হুঁ আমার ছাবাল পোলাগারে মোল্লি হোবাক যে, খেন্তো দে, খেন্তো দে।”

অকালকুষ্মাণ্ড—“বল্ বাবা, কালপেঁচাবাবুর দুটো ভোট? তুই যত টাকা চাস তা দেবো।”

গাজী (ক্ষণেক চিন্তার পর)—“আচ্ছা বল শালা বামোন, ২৫ টাকা দিবি? হ্যাঁ, ঝানলুম যে এক ঘা দায় অক্যে গেলা! দে ২৫ টাকা, দেবো তোমায় দুটো ভোঁট!”[11]

Jeremy Seabrook and Imran Ahmed Siddiqui comment: Muslims are not a matter of concern for the State unless they disturb or disrupt the existing order. It is only when they try to turn their eyes on wealth and power their activities become the interest of the State. If Muslims destruct one another it is of nobody’s concern. The word ‘Muslim’ has become synonymous with poverty and crime. They are antisocial elements. They will find a redressal mechanism for their cause.[12]

The State Government’s lackadaisical attitude towards the development of Muslims is quite evident. Muslims are not a matter of serious introspection, and the maintenance of their status quo of marginality in all public walks of life seems to be desirable. The problem arises when the Muslims try to assert their valid position, and they are invariably harassed hereafter in the guise of criminal activities or other.

সাবির আহমেদ লিখেছেন, “ধর্মীয় পরিচিতি বাদ দিয়ে মুসলমানদের যদি আর্থ-সামাজিক ভাবে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী হিসেবে গুরুত্ব দিয়ে, তাঁদের উন্নতির কথা ভাবা হত, তা হলে আজও এই সমাজকে এমন দুর্দশার মধ্যে থাকতে হত না ।” তিনি আরও বলেছেন যে রাজনৈতিক প্রতিনিধিত্ব একটি জনগোষ্ঠীর আশার প্রতিক।রাজনৈতিক প্রতিনিধিত্বে মুসলমানদের অংশ গ্রহণ বাড়লে উচ্চবর্ণের অহং-এ আঘাত লাগবে, আঘাত লাগবে তাদের স্বার্থেও, ক্ষমতার বৃত্ত কমে আসবে। মুসলমান জনপ্রতিনিধির সংখ্যা ইদানীং কিছু বাড়লেও, সমস্যা রয়েই গেছে। কারন “নীতি নির্ধারণে মুসলমানদের যোগদান অতি সামান্য।”[13] “…the pre-dominantly rural and socio-economically backward status of the Muslims has resulted in their poor representation in the social platforms—academic, political, cultural and so on, and this has created sort of social ignorance about the Muslims.”[14]

Gleamses of socio-econmoic condition of Muslims in West Bengal

Let us have a cursory look at Sabir Ahmed’s report on Muslims of West Bengal published in The Anando Bazaar Patrika. The report may be called a tip of an iceberg, and most important aspect of it that it does not delineate the status of the Bengali speaking Muslims separately. Be that as it may, the report is an eye-opener to the Muslims of West Bengal in many respects.

These statistical records reflect only the poor sordid condition of West Bengal Muslims in the arena of Government employment. Now let us survey some other areas to prove the marginality of Bengali Muslims in all other conceivable fronts.

  1. Muslims’ participation in higher education is 3 to 4 per cent only. Their enrolment in Primary and Secondary school is good. And in areas with high Muslim concentration educational infrastructure is very poor. For example in villages with 1000 Muslim populuation or more 3 per cent of such villages do not have a school at all.
  1. In schools of Muslim-concentrated areas the ratio among students and teachers is 37:1, wheras in West Bengal average student-teacher ratio is 27:1.
  2. In Muslim-concentrated areas infrastucture of health is almost nil. To have access to primary healthcare facility 35 per cent village people have to walk 4 kilometers at least, and 12 per cent of people from such “remote” villages have to walk 8 kilometers. Moreover, 45 per cent are entirely depended on quacks.
  3. The role of road or street is very vital to access to any services offered by Government. In areas with Muslim concentration 18 per cent of the road is made of mud, where plying even a cycle becomes a nightmare.[15]

আমরা মানসকুমার রায়চৌধুরী লিখিত আনন্দবাজার পত্রিকার সম্পাদক সমীপেষু চিঠিতে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্যসেন কে উল্লেখ করে লেখা থেকে জানতে পারি যে বাঙালি মুসলমানরা পশ্চিমবঙ্গের সবচাইতে “গরীব, অবহেলিত ও পিছিয়েপড়া। বেঁচে থাকার নিরিখেও এরা সামঞ্জস্যহীন ভাবে চূড়ান্ত দরিদ্র ও বঞ্চিত। পয়সাওয়ালা বা ধর্মীয় ক্ষেত্রে ক্ষমতাবান মুসলমানরাই কেবল সুবিধাভোগী। বাদবাকি দরিদ্রতর মুসলিমদের সিংহভাগই ভূমিহীন, শিক্ষাগত যোগ্যতায় দৃষ্টিকটু ভাবে পিছিয়ে।”[16]

শুভনীল চৌধুরী ও শাশ্বত ঘোষ ২০১১ সালের সেনসাস, কর্মসংস্থান সংক্রান্ত ভারতের জাতীয় নমুনা সমীক্ষা রিপোর্ট ২০১১-১২ , ও উপরে আলোচিত স্ন্যাপ রিপোর্ট ২০১৪ এর সহযোগে আনন্দবাজার পত্রিকায় পশ্চিমবঙ্গের মুসলমানদের একই বেহাল ও নিদারুন চিত্র তুলে ধরেছেন।বিশেষ করে শিক্ষা ও কর্মসংস্থানে এদের করুন অবস্থার চিত্র আমরা পায়। উনাদের তথ্যে উঠে আসা বিষয়ের কিছু কিছু অংশ তুলে ধরার চেষ্টা করছি।

  1. ২০০১ সালে রাজ্যে মুসলমান ছিল ২৫.২ শতাংশ। আর ২০১১ সালে তা বেড়ে হয়েছে ২৭.০১ শতাংশ। পশ্চিমবঙ্গে মুসলমানদের জন্মের হার হিন্দুদের তুলনায় বেশি। কিন্তু এখানেই শেষ নয়। এটা লেখকদ্বয়ের মতে “অর্ধসত্য।” বাকি সত্য হল মুসলমান সমাজে জন্মহার “দ্রুত গতিতে কমেছে।” অর্থাৎ প্রচলিত ধারনাকে মিথ্যা প্রমান করে গড়ে প্রতি মুসলমান নারীর সন্তান প্রসব কমেছে।
  2. জনসংখ্যার অনুপাতে রাজ্যে মুসলমান সম্প্রদায়ের ৩৪.৫ শতাংশ কর্মরত, যেখানে হিন্দুদের ক্ষেত্রে এই অনুপাত ৩৯.৩ শতাংশ।
  3. রাজ্যে মুসলমানদের সাক্ষরতার হার ৬৮.৮ শতাংশ, হিন্দুদের ক্ষেত্রে সেই হার ৭৯.১ শতাংশ।আর স্নাতক পাশ মুসলমান ছেলেমেয়ের অনুপাত ২.৭ শতাংশ।
  4. সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে মুসলমানরা শহরে বাস করেণ ৩৯.৯১ শতাংশ, আর গ্রামে বাস করেন ৬০.০৯ শতাংশ। কিন্ত আমাদের রাজ্যে ২২.৩৪ শতাংশ মুসলমান শহরে বাস করেন, আর গ্রামে বাস করেন ৭৭.৬৬ শতাংশ। সুতরাং বাংলার মুসলমান বেশি গ্রামীন।
  5. রাজ্যে মুসলমান খেতমজুরেরে অনুপাত ৩১.৩ শতাংশ, হিন্দুদের ক্ষেত্রে তা ২৮.২ শতাংশ।
  6. নির্মাণকাজে মুসলমানদের অনুপাত ১২.৬ শতাংশ, হিন্দুদের ক্ষেত্রে এই অনুপাত ৬.৫ শতাংশ।
  7. গ্রামের ৮০ শতাংশ মুসলমান গৃহস্থের পারিবারিক মাসিক আয় ৫০০০ টাকার কম।শহরে এই অনুপাত ৬৫ শতাংশ। অর্থাৎ রাজ্যের মুসলমানদের দুই-তৃ্তীয়াংশ মানুষ দারিদ্র সীমার নিচে বসবাস করেন।

এত তথ্যের পর লেখকদ্বয়ের বলিষ্ঠ মন্তব্য “তাই মুসলমান সমাজের উন্নয়নের কথা বললে যাঁরা সাম্প্রদায়িক রাজনীতির জিগির তোলেন, তাঁরা পশ্চিমবঙ্গের সার্বিক উন্নয়নের বিরোধিতা করছেন।”[17] আরে খেতে পরতে পান না তো কি হয়েছে। বেঁচে তো আছেন। গুজরাটের দাঙ্গা তো আর কলকাতায় হয়নি। এর থেকে বেশি পশ্চিমবঙ্গের মুসলমান কি আশা করতে পারে? সব রাজনৈতিক দলের বুলি একই। এরা সব ঠেকা নিয়ে বসে আছে বাঙালি মুসলমানদের দাঙ্গার হাত থকে রক্ষা করার জন্য। ভাবটা এমন যে মুসলমানদের জন্য কিছু না করলেও হবে। শুধু মাঝে মধ্যে মুসলমানদের জানান দিতে হবে যে আমরা তোদের রক্ষাকর্তা। ব্যাস, কেল্লা ফতে।কিন্তু এখানেও দাঙ্গা থেকে রক্ষা করার বেলুন চুপসে যাই। সেই সন্দেহের একটি মূল্যবান দলিল Jeremy Seabrook and Imran Ahmed Siddiqui-এর “people without history: india’s muslim ghettos.” হলদে রঙের কালিতে এই বইয়ের ব্যাক কভারে জ্বল জ্বল করছে কথাগুলি,

Kolkata’s Muslims live in a city that for 33 years was governed by the Communist Party of India [Marxist]. It has been the proudest boast of the Communists that they have been

guided by a secular ideology, and that as a result, Muslims in West Bengal have been spared the excesses of communalists in Gujrat, Maharastra, Orissa and elsewhere.[18]

পশ্চিমবঙ্গের মুসলমানদের ‘দাঙ্গার জুজু’ দেখান সব রাজনৈতিক দলগুলির একটি নিয়মিত মোক্ষম অস্ত্র।অতীন বন্ধ্যোপাধ্যায় ভাল বলেছেন,

এই দেশে হিন্দু-মুসলমানের বিদ্বেষ জাগিয়ে দাও। অর্থনৈতিক সংগ্রামের কথা এখন বলা যাবেনা। শ্রেণীসংগ্রামের কথা বলে যেত, কিন্তু কিছু উপর তলার মানুষ রয়ে গেছি আমরা, আমাদের তবে কি হবে। তার চেয়ে ভাল ধর্ম জাগরণ। ধর্মের নামে ঢোল বাজিয়ে আখের গুছিয়ে নাও।[19]

বাঙালি মুসলমানদের সমস্যা বহুবিধ। কিন্তু সেগুলিকে বিশ্লেষণ করে নিম্নের সিন্ধান্তগুলিতে আসা খুব কঠিন নয়।

১। টুপি দাড়ি ছাড়া, মানে ধর্মকে বাদ দিয়ে মুসলমানদের আলাদা ভাবে একটি পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী হিসেবে দেখা হয় না।

২। মুসলমানদের রাজনৈতিক জনপ্রতিনিধি বাড়লে সখ্যাগুরুর মহা বিপদ, মানে তাঁদের ক্ষমতা ও সুযোগ সুবিধার পরিমণ্ডল কমে যাবে। এই ভয় সখ্যাগুরুর চেতন বা অবচেতন মনে কাজ করে। এটা খুবই স্বাভাবিক।

৩। মুসলমান রাজনৈতিক জনপ্রতিনিধিদের নিতি নির্ধারণের কোনও ক্ষমতা নেই। তাই আমি এদের ‘জি হুজুর’ গোছের বলি। এদের মধ্যে কেউ কেউ ঘোলা জলে মাছ ধরে নিজেরটা কামিয়ে নেন।

৪। মুসলমানরা শিক্ষা, কর্মসংস্থান, রুজিরোজগার সব দিক থেকে পিছিয়ে। জীবন ধারনের নূনতম মান এদের নেই।

৫। সুবিধাবাদি, ধান্দাবাজ, স্বার্থপরায়ন দলগুলি মুসলমানদের চাপে রাখার জন্য সময় সময় দাঙ্গার জুজু দেখায়।এক্ষেত্রে সব দলের নীতি এক।

The Uniqueness Of Bengali Muslims

The Bengali Muslims are merely “footballs”, as earlier stated. They exist for the benefit of everyone barring themselves. I quote my favourite Kahlil Gibran,

I have cried over your humiliation

And submission; and my tears streamed

Like crystalline, but could not sear

Away your stagnant weakness…

………………………………….

I hate you, My Countrymen, because

You hate glory and greatness. I

Despise you because you despise yourselves.

——– “My Countrymen”[20]

বাঙালি মুসলমান গোবেচারা জীব বলে সুনাম ও দুর্নাম দুইই আছে। সুনাম/ দুর্নাম শুনতে পায় বন্ধুদের কাছে, “ তোরা বিহারী মুসলমানদের মত ‘এগ্রেসিভ’ না”। বাঙালির রক্ত কিনা।তাই বাঙালি মুসলমান কিছুটা হলেও সংযত আচার, আচারনে, কথাবার্তায়। এখন একদিনকার মজার ঘ্টনা বলি। আমি তিস্তায় ফালাকাটা থেকে বহরমপুরে সপ্তাহের শেষে বাড়ী ফিরছিলাম। পাশে বসেছিল একজন বয়স্ক জনৈক হিন্দু ভদ্রলোক। ট্রেন কিষানগঞ্জ থামলে টুপি ও লুঙ্গি পরা ছোটো খাটো সাদা মাটা চেহারার এক দল তবলীগ জামাত, সংখ্যায় জনা ত্রিশ হবে, আমাদের কামরাটায় উঠল। এদের দেখা মাত্র বয়স্ক ভদ্রলোকের তার পাশে বসা লোকটির মনোযোগ আকর্ষণ করে তাচ্ছিল্যকর মন্তব্য, “ না, না, এরা বাঙালি মুসলমান। আজমগড়ের মুসলিম হুউ”। ঐ ভদ্রলোকের কাছে বাঙালি মুসলমান ভীষণ গরীব হওয়াতে, ও হিন্দি বা উর্দু না বলতে পারাতে, এবং চেহারাতে খর্বকার হওয়াতে, এরা একরকম ভেড়া গোত্রিয় জীবের মত মনে হয়। আজমগড়ের মুসলিমরা হল সাচ্চা মুসলমান। ভেতো বাঙালি মুসলমান খাঁটি মুসলমান নামের কলঙ্ক। আ্মার William Blake – এর “The Lamb” কবিতাটি মনে পড়ে, যেখানে “He [God/ Christ] is called by thy name, for he calls himself a lamb.” বাঙালি মুসলমান তাই ভেড়া বা lamb হতে পারলে তার গর্বিত হওয়া উচিৎ। কবিতাটির কয়েক লাইন এরুপ,

Little lamb, who made thee?

Dost thou know who made thee?

Little lamb, I’ll tell thee,

Little lamb, I’ll tell thee:

He is called by thy name, for he calls himself a lamb.

He is meek, and He is mild;

He became a little child.

বাঙালি মুসলমানের ভীরুতা কাপুরুষতা নয়। বরং এটা তাঁর মৌলিক গুন।তাঁর “meeknees,” “tenderness,” and “gentleness” তাঁকে মহানুভবতা দান করে। এতে তার লজ্জার কিছু নেই, গর্ব করার আনেক কিছু আছে। বাঙালি মুসলমানের দুর্বলতা হল তার সবলতার পরিচায়ক।বাঙালি মুসলমানের সরল সাধারন সাদা মাটা জীবন, তাদের নিরীহ স্বভাব, অকৃত্রিম আথিতেয়তা, তাদের দুর্বলতা, ভীরুতা—এসবই তার একান্ত মৌলিক গুণ। হতে পারে চাষা, লেখাপড়া জানে না, গরীব। কিন্তু হৃদয় সোনা দিয়ে মোড়ান, কুসংস্কার মুক্ত। চাষি, চাঁড়াল, বাবু, ভদ্রলোক, গরীব, বড়লোক, যে কেউ বাঙালি মুসলমানের বাড়ীতে গেলে, তারা অতিথিদের ঘরের ভিতর নূতন পাটি, কাঁথা, বা চেয়ারে বসতে দেবে। বাড়ীর সব থেকে ভাল কাপে চা দেবে। নূতন গ্লাসে জল দেবে। কারন এরা সূচিবাইগ্রস্থ নয়। এই অকৃত্রিম আথিতেয়তা খুব কম বাবু ভদ্রলোকের বাড়ীতে প্রত্যাশা করা যাই।বরং বেশিরভাগ ভদ্রলোক মুসলমান ও অন্যান্য ‘ছোট/নিচু’ জাতের জন্য আলদা এক সেট কাপ প্লেট রেখে দেন ভাড়ার ঘরের এক নির্দিষ্ট কোনে। নিচু জাতের কামলা, মুনিশ, মিস্ত্রী এলে সেগুলিতে চা দেওয়া হয়। পরে ‘কাজের মেয়ে’ কাপ প্লেটগুলি ভাল করে মেজে, বসা জায়গাটি গঙ্গা জল ছিটিয়ে, পারলে ভাল করে নিকিয়ে দেয়। বাঙালি মুসলমানের এই কপটতা নেয়।বেশিরভাগ বাঙালি মুসলমান চালচুলোহীন, মানে ‘wretched of the earth’ বলা যেতে পারে। বাঙালি মুসলমান নিরীহ, দুর্বল, সরল।আর এই গুণগুলি তাদের স্বকীয়তার স্বরূপ।

Conclusion

In contrast to the national trend, where more than one third of the Muslims live in urban areas, in West Bengal Muslims share less than one fifth of the urban population. Given the urban-centric power structure dominated by upper caste Hindu elites, the rural root of the Muslims of West Bengal has led to their being almost invisible in urban public domain—educational institutions, public services, media, cultural platforms, and other podiums of importance. Nevertheless, notwithstanding a general silence on the issue, some initiatives, however limited, were seen to be taken by part of the intelligentsia. This had contributed, in its limited way, to the strengthening of a Muslim agency, the seeds of which could be seen in the social efforts at organising schools, healthcare facilities, and so on taken up by sections of the Muslims.[21] They are merely triumph cards at the hand of dishonest and unscrupulous political leaders who use, misuse and abuse them for their political mileage. Second, the upper caste Bengali Hindus irrespective of party colours who are at the helm of affairs never want their co-habitant muslims at par with them in multi sectoral perspectives. Third, the local ignorant maulvis and their madrasas is a severe hindrance to the educational and social competence of the Bengali muslims. Fourth, they must assert their Bengali identity and refuse the path of Urdu speaking urban muslims. Fifth, an economic and educational revamp and a change of stolid mindset of hackneyed muslims, and a cleansed heart of their haughty and egoistic co-brethren can allay their pain of being marginalized. Otherwise, as Said said in another context, Bengali muslims can never represent themselves; they must always be represented, and in derision of course.[22]

As earlier stated the market of Dalit literature is good enough to produce numberless Ph. Ds in this field. But I doubt that any serious contribution to the enrichment of the Dalits being made by such Ph. Ds. But a slow change is taking place in the case of Dalits. And that change matters. But any discussion on Bengali Muslims has been almost a taboo. While, thanks to certain constitutional guarantees and other public measures, unfair treatment against the Adivasis and the Dalits is at least acknowledged, discussion on the socio-economiuc handicaps of the Muslims remains almost a taboo. And even after the publication of the Sachar Report that has clearly brought out the depressed status of the Muslims as regards capability-enhancing opportunities, debates and deliberations on the issue in West Bengal are far from adequate. The inadequacy of informed engagement has not only had its effect on the continually depressed socio-economic status of the Muslims of West Bengal, but also on the imagination of the Muslim identity that is being [invariably] framed solely on religious line, ignoring multiple other facets of their lives. [23] For the true development of Muslims the first and foremost condition is to separate them from what I call their ‘Burquha- topi-dari’ line. Muslims should have to be thought as a democratic citizen with all the constitutional rights and duties of the nation. And in no way their religious tag is to be tantalized.Veteran journalist of repute, M. J. Akbar comments with due justification,

The need of the hour was to change the attitude and mindset. “Changing attitude and mindset is not easy but when the time demands a change, a change should be ushered in, for power flows not from a sword but power flows from education.” Muslims should start regaining their self-confidence and shed the “politics of begging.” “Indian Muslims should consider themselves fortunate since India is a democratic country and communities here are empowered.” Muslims should not just cast their votes but sell them. “Sell it to the bidder who promises education and especially to that bidder who promises education to the girls,”[24]

I quote my favourite Kahlil Gibran to conclude,

I have cried over your humiliation

And submission; and my tears streamed

Like crystalline, but could not sear

Away your stagnant weakness…

………………………………….

I hate you, My Countrymen, because

You hate glory and greatness. I

Despise you because you despise yourselves.

——– “My Countrymen”[25]

প্রসঙ্গ ভিন্ন হলেও কবিগুরুর ভাষায় তাই বাংলার বাঙালি মুসলমানদের বলতে চায়,

“মুহূর্ত তুলিয়া শির একত্র দাঁড়াও দেখি সবে,

যার ভয়ে তুমি ভীত সে অন্যায় ভীরু তোমা চেয়ে,

যখনি জাগিবে তুমি তখনি সে পলাইবে ধেয়ে;

যখনি দাঁড়াবে তুমি সম্মুকে তাহার, তখনি সে

পথকুক্কুরের মতো সংকোচে সত্রাসে যাবে মিশে;

দেবতা বিমুখ তারে, কেহ নাহি সহায় তাহার,

মুখে করে আস্ফালন, জানে সে হীনতা আপনার

মনে মনে।”

References

[1] Romila Thapar. “The Historiography of the Concept of ‘Aryan’. ” India: Historical Beginnings and the Concept of the Aryan. Romila Thapar et all. New Delhi: National Book Trust, 2013. pp. 9,14, 19

[2] নীরদচন্দ্র চৌধুরী, নির্বাচিত প্রবন্ধ, সম্পদনা, ধ্রুব নারায়ণ চৌধুরী, কলকাতাঃ আনান্দ, ২০১৩, পৃঃ৭৩

[3] Mojumdar, Atindra. Arabic, Persian and Turkish Words in Bengali Literature. Kolkata: Ekwsh Shatak, 2012. pp.10-12

[4] “Introduction”. Living Reality of Muslims in west Bengal: A Report. Association SNAP and Guidance Guild in association with Pratichi Institute, Kolkata.2016. p. 6

[5] Ibid, p. 6

[6] Ibid, p. 7

[7] Ibid. p. 7

[8] আনিসুজ্জামান, মুসলিম-মানস ও বাংলা সাহিত্য (১৭৫৭-১৯১৮), ঢাকাঃ চারুলিপি প্রকাশন, ২০১২, পৃঃ ৩৪০

[9] Vandana Shiva, ‘Sacred Cow: A Miliking Machine.’ The Deccan Chronicle. Nov. 3. 2016 <http://epaper.deccanchronicle.com/articledetailpage.aspx?id=6666553>. Web. Accessed on, Nov 5, 2016.

[10] নীরদচন্দ্র চৌধুরী, আত্মঘাতী বাঙালী, প্রথম খণ্ড, কলকাতাঃ মিত্র ও ঘোষ,১৪১৮ বঙ্গাব্দ, পৃ.১৯৮

[11] নীরদচন্দ্র চৌধুরী, “ভোটমঙ্গলঃ সেকালের বাঙালীর চোখে ইলেকশন”, দেশঃ সুবর্ণজয়ন্তী প্রবন্ধ সংকলন (১৯৩৩-১৯৮৩), সম্পাদক, সাগরময় ঘোষ, কলকাতাঃ আনন্দ পাবলিশার্স,২০০০,পৃঃ ২২৭-২৩২

[12] Jeremy Seabrook and Imran Ahmed Siddiqui. “people without history: india’s muslim ghettos.” New Delhi: Navayana, 2011. P. 19. Print.

[13] সাবির আহমেদ, সংখ্যাগুরু সংখ্যালঘুর কথা বলবে না, আনন্দবাজার পত্রিকা, ০৩.০৫.২০১৬, পৃঃ ৪

[14] “Introduction”. Living Reality of Muslims in west Bengal: A Report. Association SNAP and Guidance Guild in association with Pratichi Institute, Kolkata.2016. p. 6

[15] সাবির আহমেদ, সাচার কমিটি রিপোর্টের দশ বছর পরে, আনন্দবাজার পত্রিকা, ২৪.০১.২০১৬, পৃঃ৪

[16] মানসকুমার রায়চৌধুরী, পাঁচ বছরে কতটুকু করেছেন, আনন্দবাজার পত্রিকা, ২১.০৩.২০১৬, পৃঃ ৪

[17] শুভনীল চৌধুরী ও শাশ্বত ঘোষ, মুসলমানদের বাদ দিয়ে উন্নয়ন হবে না, আনন্দবাজার পত্রিকা, ২৪.০১.২০১৬, পৃঃ ৪

[18] Jeremy Seabrook and Imran Ahmed Siddiqui. “people without history: india’s muslim ghettos.” New Delhi: Navayana, 2011. Print.

[19] অতীন বন্ধ্যোপাধ্যায়, নীলকণ্ঠ পাখির খোঁজে, কলকাতাঃ করুণা প্রকাশনী, ২০১০,পৃঃ৩০৭

[20] Kahlil Gibran. “My Countrymen” in Secrets of the Heart. New Delhi: UBSPD, 2006. Print

[21] “Introduction”. Living Reality of Muslims in west Bengal: A Report. Association SNAP and Guidance Guild in association with Pratichi Institute, Kolkata.2016. p. 4

[22] Abu Siddik, “Bengali Muslims as Marginals: An Overview” in Representation of the Marginalized in Indian writings in English. Ed. Abu Siddik. Falakata, Alipurduar: Falakata College, Publication Cell, 2015. p. 183-184. Print.

[23] “Introduction”. Living Reality of Muslims in west Bengal: A Report. Association SNAP and Guidance Guild in association with Pratichi Institute, Kolkata.2016. p. 3

24 M.J. Akbar, “Muslims should shed attitude of minorityism”. The Hindu, 19 Feb. 2013

[25] Kahlil Gibran. “My Countrymen” in Secrets of the Heart. New Delhi: UBSPD, 2006. Print

Continue reading “Layered Marginality of Bengali Muslims in West Bengal: An Introspective Study”